অজুর বিধান ও রোকনসমূহ

অজুর বিধান ও রোকনসমূহ
আল্লাহ তা’আলা বলেন, হে ঈমানদারগণ যখন তোমরা নামাজে দাঁড়ানোর ইচ্ছা করো, তখন তোমরা তোমাদের মুখমন্ডল ও হাত কোনুইসহ ধৌত করো। এবং মাথা মাসেহ করো এবং পা টাকনুস ধৌত করো। (সূরা মায়েদা ৬)
এবং নবীজি (স.) এরশাদ করেন তোমাদের কারো নামাজ আল্লাহ তায়া’লা কবুল করবেন না, যখন সে ওযু ভেঙ্গে ফেলবে যে পর্যন্ত না সে ওযু করবে।(বুখারী মুসলিম)

অজুর আভিধানিক অর্থ, সৌন্দর্য ও পরিচ্ছন্নতা।
শরীয়তের পরিভাষায়: অজু বলা হয় এমন পবিত্রতাকে যা পানি ব্যবহার করা দ্বারা হয়, যা মুখমন্ডল হাত ও পা ধৌত করা এবং মাথা মাসেহ করা কে অন্তর্ভুক্ত করে। অজু ছাড়া নামাজ জায়েয নয়, অজু ছাড়া কুরআন স্পর্শ করা জায়েজ নয়, যে ব্যক্তি সবসময় অজু অবস্থায় থাকবে সে পরকালে সর্বেোচ্চ মর্যাদার অধিকারী হবে।

অজুর রোকনসমূহ:
(১) মুখমন্ডল ধৌত করা। (মুখমন্ডলের সীমারেখা: দৈর্ঘ্যে কপালের উপরের অংশ থেকে শুরু করে থুতনির নিচে পর্যন্ত এবং প্রস্থে তার সীমারেখা দুই কানের লতির মাঝের অংশ)
(২) দুই হাতের কুনুইসহ একবার ধোত করা।
(৩) মাথার এক চতুর্থাংশ মাসেহ করা।
(৪) দুই পা টাখনুসহ একবার ধৌত করা।

পরবর্তী বিষয় অজু ভঙ্গের কারণসমূহ এবং কি কি কারণে গোসল ফরয হয় এ বিষয়ে বিস্তারিত আলোচনা করা হবে। আমাদের সাথে থাকুন আমরা আপনাদের সাথে আছি। ইনশাআল্লাহ

ইমানের পরিচয়:

ইউটিউব

Spread the love

Leave a Comment