সৎ ব্যবসায়ীর মর্যাদা

রাসুলুল্লাহ (স.) বলেন যে ব্যবসায়ী সত্য কথা বলে এবং খেয়ানত বিশ্বাসঘাতকতা করেনা, কেয়ামতের দিন সে নবী, সিদ্দিক, এবং শহীদগণের সাথে থাকবে। (মুসনাদে ইমাম আহমাদ ৬/৩১৬ তিরমিজি ১/২২৯)

অন্য এক হাদীসে এসেছে যে, উত্তম ব্যবসায়ী ঐ ব্যক্তি যে ওয়াদা মোতাবেক আদান-প্রদান করে। এবং সবচেয়ে খারাপ ব্যবসায়ী ঐ ব্যক্তি যে আদান-প্রদান খারাপ ভাবে করে।

নমুনা দেখে বেচাকেনা করা

ঐ সমস্ত জিনিস যার নমুনা দেখানো যায়, এমন জিনিসের শুধু নমুনা দেখিয়ে বেচা-কেনা করা জায়েজ আছে।

তবে নমুনার বিপরীত কোন জিনিস পেলে তা ফেরত দেওয়ার অধিকার ক্রেতার থাকবে। (ইযাহুন্নাওয়াদের১/১৮)

অর্ডার দিয়ে মাল বানানো

ব্যবসায়ীরা মালের নমুনা এবং সাইজ দেখে মাল প্রস্তুতকারকদের কে মাল বানানোর অর্ডার দেয়। আর প্রস্তুতকারক ওই মোতাবেক মাল বানিয়ে দেয় এভাবে বেচা-কেনা করা শরীয়তে জায়েজ আছে তবে কোন মাল নমুনার বিপরীত পেলে তা পাল্টিয়ে নেওয়া বা ফেরত দেওয়ার অধিকার ক্রেতার থাকবে। (সারকথা: ইমদাদুল ফতোয়া ১/২৫)

যে চারটি কারণে গোসল ফরয হয়

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

Spread the love

Leave a Comment