হযরত ইসমাঈল (আ.) এর বিবির কাহিনী

হযরত ইসমাঈল (আ.) এর বিবির কাহিনী

খানায়ে কাবা নির্মাণের পর হযরত ইব্রাহিম খাললিুল্লাহ আরও দুইবার মক্কায় আগমন করেন। কিন্তু একবারও ইসমাঈল (আঃ)-এর সহিত সাক্ষাৎ ঘটে নাই। প্রথমবার এসে হযরত ইসমাঈল এর বিবিকে বাড়িতে পেলেন। জিজ্ঞাসা করলেন- তোমরা কি অবস্থায় কালাতিপাত করছো? উত্তরে বিবি বললেন আমরা অত্যন্ত মুছিবতের ভিতর কালযাপন করতেছি।

অতঃপর হযরত ইব্রাহিম খাললিুল্লাহ বললেন- আচ্ছা তোমার স্বামী (হযরত ইসমাঈল) বাড়ি আসলে আমার সালাম দিও এবং এটা বলবে যে তিনি (খলিলুল্লাহ) বলেছেন যে, আপনার ঘরের চৌকাঠ বদলে ফেলতে। কিছুদিন  পর হযরত ইসমাঈল (আঃ) বাড়ি আসলেন, বিবির কাছ থেকে বিস্তারিত খবর অবগত হলেন।

অতঃপর হযরত ইসমাঈল (আঃ) বললেন-উক্ত আগন্তুক আমার পিতা এবং চৌকাঠ তুমি নিজে। তিনি এই কথাই বলেছেন যে, আমি যেন তোমাকে পরিত্যাগ করি। ইহার পর হযরত ইসমাঈল (আঃ) এই বিবিকে তালাক  দিয়ে অন্য এক  বিবাহ করলেন। নববধূকে বাড়ি রেখে  তিনি পুনরায় বিদেশ সফরে বাহির হইলেন। ইতিমধ্যে হযরত ইব্রাহিম (আঃ) আগমন করলেন। নববধূকে তিনি জিজ্ঞাসা করলেন- তোমরা কি অবস্থায় কালাতিপাত করছো,

বিবি উত্তর করলেন, আল্লাহ তাআলার শোকর যে, আমরা সুখেই কালযাপন  করছি। হযরত ইবরাহীম (আঃ) তার জন্য দোয়া করলেন এবং বললেন- তোমার স্বামী বাড়ি আসলে আমার সালাম জানাইও। ইহাও বলিও যে সে যেন তার ঘরের চৌকাঠ ঠিকেই রাখে। অল্পদিন পরেই হযরত ইসমাঈল(আঃ) বাড়ি আসলেন এবং যাবতীয় বিষয়ে অবগত হলেন।

তারপর বললেন উক্ত আগন্তুক আমার পিতা এবং উক্ত চৌকাঠ তুমি নিজেই। র্অথাৎ তিনি বলছেন,তোমাকে আমার নিকট রাখতে। এখানে শিক্ষণীয় বিষয় এই যে, প্রথম বিবির না-শুকরিয়ার কারণে এক নবীর অসন্তুষ্টরি দরুন অন্য নবী তাকে পরিত্যাগ করলেন।

পক্ষান্তরে দিতীয় বিবি শুকরগুযার হওয়ার পরিণামে এক নবীর সন্তুষ্টি ও  দোয়ার বরকতে অন্য নবী তাকে স্ত্রীরুপে রাখা মনাসেব মনে করলেন।অতএব,প্রত্যকে আল্লাহ বিশ্বাসী মানুষের র্কতব্য সর্বাবস্থায়ই ধৈর্য্যসহকারে  রাযি থেকে আল্লাহ তালার শোকর গোযার হওয়া। ইহা অতি উত্তম পন্থা।

 

দীর্ঘ সময় সহবাস করার উপায় বা সহবাসের স্থায়িত্বকাল বাড়ানোর পদ্ধতি

বীর্য ঘন করার ঔষধ তৈরির পদ্ধতি

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

Spread the love

Leave a Comment