আল্লাহর কসম দিয়ে তোমাকে আমি জিজ্ঞাসা করছি, তুমি কোন অবস্থায় মৃত্যুবরণ করতে চাও, তুমি কি আল্লাহ তায়ালাকে সন্তুষ্ট রেখে মৃত্যুবরন করতে চাও? নাকি আল্লাহ তা’আলাকে অসন্তুষ্ট রেখে মৃত্যুবরন করতে চাও, তুমি কি নেককার অবস্থায় মৃত্যুবরণ করতে চাও, নাকি গুনাহগার অবস্থায় মৃত্যুবরণ করতে চাও, বিশিষ্ট তাবেয়ী আমের ইবনে আব্দুল্লাহ রাহমাতুল্লাহি তিনি মুমুর্শ অবস্থায় মৃত্যু শয্যায় শায়ীত ছিলেন এমন সময় মসজিদের মিনার থেকে মাগরিবের আজান ভেসে আসলো, মুয়ায্যিন হাইয়া আলাস্সলাহ হাইয়া আলাস্সলাহ বলে নামাযের দিকে ডাকতে লাগলো মুয়ায্যিনের আজান শুনা মাত্রই তিনি তার পাশের লোকদের বললেন আমার উভয় হাত ধরে আমাকে মসজিদে নিয়ে চলো লোকেরা বলল আপনি তো অসুস্থ আপনি কেন মসজিদে যাবেন ইসলাম তো আপনাকে ঘরে নামাজ পড়ার সুযোগ দিয়েছে তখন তিনি তাদেরকে লক্ষ্য করে বললেন মুয়ায্যিন মসজিদের মিনার থেকে আমাকে নামাজের দিকে ডাকছে, আল্লাহর দিকে আহবানকারী মসজিদের মিনার থেকে আমাকে আল্লাহর দিকে ডাকছে আর আমি ঘরে বসে থাকবো! এটা কিভাবে সম্ভব আল্লাহর কসম করে বলছি এটা আমার দ্বারা সম্ভব নয় লোকেরা তার উভয় হাত ধরে মসজিদে নিয়ে গেল তিনি মাগরিবের জামাতে অংশগ্রহণ করলেন ইমামের সাথে সাথে তিনি রুকুতে গেলেন আর এই রুকু অবস্থায় আল্লাহর সামনে মাথা নত করা অবস্থায় মৃত্যুবরণ করলেন। প্রিয় ভায়েরা একটু চিন্তা করে বলুনতো কেয়ামতের দিন তার পুনুত্থানটা কিভাবে হবে! তার পুনরুত্থানটা কোন অবস্থায় হবে? (ইয়া কওমানা আজিবু দায়ীয়াল্লাহী ওয় আমীনু বিহি ইয়াগফিরলাকুম মিং যুনুবিকুম ওয়াইউজিরকুম মিন আযাবিন আলিম) হে আমার জাতী হে আমার জাতী তোমরা আল্লাহর দিকে আহবান কারীর ডাকে সাড়া দাও এবং তার উপর ইমান আনো আল্লাহ তায়ালা তোমাদের যাবতীয় গোনাহ মাফ করে দিবেন এবং তোমাদের কঠিন আযাব থেকে মুক্তি দিবেন। প্রিয় ভাই যে তোমার মৃত্যু হবে, সেদিন কি অবস্থাটাই না হবে, যে তোমাকে কাফনের কাপর পরিধান করা হবে সেই সময়টা কতইনা কঠিন হবে, যে তোমাকে নির্জন অন্ধকার কবরে একাটি রেখে আশা হবে হবে সেই মুহূর্তটা কত ভয়াবহ হবে, মৃত ব্যক্তিকে গোসল করাতো এমন একজন লোক বর্ণনা করেন একবার গোসল করানোর জন্য আমার কাছে এক মৃত ব্যক্তিকে নিয়ে আসা হলো আমি যখন সেই মৃত লাশটিকে গোসল করানোর জন্য তার কাছে গেলাম তার চেহারা থেকে কাপর সরালাম তখন আমি ভয়ে আতকে উঠলাম আমি দেখতে পেলাম সে মৃত ব্যক্তির চেহারা বিকৃত হয়ে গেছে তার চেহারা কালো হয়ে এতটাই ভয়ঙ্কর আকার ধারণ করেছে যে আমি এক মুহূর্ত সেখানে দাঁড়াতে পারলামনা আমি ভীত সন্ত্রস্ত হয়ে সেখান থেকে বেরিয়ে আসলাম আমি দেখতে পেলাম একজন লোক দাঁড়িয়ে আছে আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম এ মৃত ব্যক্তি আপনার কি হয় সে বলল আমার ছেলে আমি তাকে জিজ্ঞাসা করলাম মৃত ব্যক্তির ভয়াবহ অবস্থার কারণ কি? তার পিতা জবাব দিল এই অবস্থার কারণ হচ্ছে সে নামাজ পড়তো না এই অবস্থার কারণ করছে সে কখনোই নামাজ পড়তো না তখন আমি তাকে বললাম এই ব্যক্তিকে গোসল করানোর আমার পক্ষে সম্ভব নয় আপনারাই তাকে গোসল করান, আর যে ব্যক্তি নামায পড়েনা ইসলামে তার বিধান হলো সে মারা যাওয়ার পর তাকে গোসল করানো হবে না তাকে কাফনের কাপড় পরিধান করানো হবে না তার জানাযা আদায় করা হবে না তাকে মুসলমানদের কবরস্থানে দাফন করা হবে না বরং তাকে এক বিরান ভুমিতে নিয়ে যাওয়া হবে মরুভূমিতে নিয়ে যাওয়া হবে সেখানে একটি গর্ত খনন করে তাকে উপুড় করে ফেলে মাটি চাপা দিয়ে রেখে আসা হবে প্রিয় ভাই একটু চিন্তা করুন আপনি কি এমন মৃত্যুর জন্য প্রস্তুত?