কুরবানী কার উপর ওয়াজিব কোরবানি সম্পর্কে মাসালা

কুরবানী কার উপর ওয়াজিব:

কুরবানী ওয়াজিব হওয়ার জন্য শর্ত ৬টি: ১. মুসলিম হতে হবে। ২. স্বাধীন হওয়া। ৩. স্থায়ী অধিবাসী হওয়া। ৪. জ্ঞান সম্পন্ন হওয়া। ৫. প্রাপ্তবয়স্ক হওয়া। ৬. নেসাব পরিমান সম্পদের মালিক হওয়া। এমন ব্যক্তি যদি জিলহজ্ব মাসের ১০,১১, ১২ এই তিন দিনের মধ্যে নিসাব পরিমাণ মালের মালিক হয়, তার উপর কুরবানী ওয়াজিব।

নেসাব হলো, সাড়ে সাত তোলা স্বর্ণ অথবা সাড়ে ৫২ তোলা রুপা অথবা তার সমপরিমাণ সম্পদের মালিক হওয়া। এমন ব্যক্তির উপর কুরবানী ওয়াজিব। ফতোয়ায়ে শামী পঞ্চম খন্ড ১৯৮

১। মুসাফিরের ওপর কি কুরবানী ওয়াজিব?

উত্তর : কোন ব্যক্তি কোরবানীর সময়ে মুসাফির অর্থাৎ বাড়ি থেকে ৪৮ মাইল অথবা ৭৮ কিলোমিটার দূরত্বে থাকে, তাহলে ওই ব্যক্তির উপর কুরবানী ওয়াজিব নয়। ( স্বামী পঞ্চম খন্ড: ১৯৮ পৃষ্ঠা)

২। ফ্লাট বাড়ি বা আবাদি জমির উপর কি কোরবানি ওয়াজিব?

উত্তর: ফ্ল্যাটবাড়ি বা আবাদি জমি নেসাবের মধ্যে শামিল নয়। কিন্তু তার ফসলের মূল্য, অথবা ভাড়া যদি প্রয়োজনের অতিরিক্ত থাকে এবং তার মূল্য নিসাব পরিমাণ হয়, তাহলে কুরবানী ওয়াজিব। ( ফতোয়ায়ে শামী পঞ্চম খন্ড ১৯৮)

প্রয়োজনীয় জিনিসের উপর কি কুরবানী ওয়াজিব?

৩। উত্তর: সাংসারিক প্রয়োজনের অতিরক্ত আসবাবপত্র এবং বসতঘর ব্যতীত অতিরিক্ত বিক্রির জন্য কৃত ঘর অথবা তার আয়ে নেসাবের অন্তর্গত। কিন্তু দৈনন্দিন প্রয়োজনীয় জিনিসপত্র এবং বসতঘর নেসাবের অন্তর্গত নয়।

৪। স্ত্রীর উপর কি কুরবানী ওয়াজিব?

উত্তর: স্ত্রীর যদি নেসাব পরিমাণ নিজস্ব সম্পদ থাকে যেমন অরিক্ত গহনা তাহলে তার উপর কুরবানী ওয়াজিব।

৫। এক পরিবারে কয়জন এর উপর কুরবানী ওয়াজিব?

উত্তর: যদি একজনের ৫জন সন্তান থাকে এবং সবাই একি সংসারের অন্তর্ভুক্ত হয়, তাহলে শুধু পরিবারের অভিভাবক (যেমন বাবা) তার উপর কুরবানী ওয়াজিব। আর যদি প্রত্যেক ভাই আলাদা আলাদা হয়। এবং তারা আলাদা আলাদা নিসাবের মালিক হয় তাহলে সবার উপরই কোরবানি ওয়াজিব।

৬। পিতা মাতার নামে কুরবানী কি জায়েজ?

উত্তর: যদি পিতা-মাতা মারা যায়, আর তার সন্তান নিসাব পরিমাণ মালের মালিক হয় এই ব্যক্তি যদি পিতা মাতার পক্ষ থেকে কুরবানী করে, কিন্ত পক্ষ থেকে কোন অংশ না থাকে তাহলে সে গোনাহগার হবে। প্রকৃতপক্ষে কুরবানী তার উপর ওয়াজিব যে, বেঁচে আছে এবং নিসাব পরিমাণ মালের মালিক।

তবে কোন ব্যক্তি যদি নিজের পক্ষ থেকে একাংশ রেখে পিতা-মাতার পক্ষ থেকে আলাদা আলাদা অংশ কুরবানী করে, তাহলে সবার কুরবানী-ই আদায় হবে।

৭। কুরবানীর পশুর যদি মারা যায় করনীয় কি?

উত্তর: যদি কুরবানী দাতা ধনী হয়। তাহলে তার ওপর আরেকটি ক্রয় করে কুরবানী করা ওয়াজিব। আর যদি গরিব হয়, তাহলে তার আরেকটি কুরবানী করতে হবে না।

৮। কোন কোন পশু দ্বারা কুরবানী করা জায়েয?

উত্তর: ছাগল, ভেড়া, দুম্বা, গরু মহিষ, ঊট এই প্রাণীগুলো দাঁড়া কুরবানী করা জায়েয আছে।

কুরবানী কার উপর ওয়াজিব

কুরবানীর ইতিহাস ও সূচনা

ইসলাম ধর্মে কুরবানী

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

Spread the love

Leave a Comment