সমকামিতা বা পুং মৈথুনের কারণে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন হযরত লুত (আ.) এর জাতিকে ধ্বংস করে দিয়েছিলেন। লুত (আ.) তাদেরকে সত্যের পথে আহবান করেছিলেন। কিন্তু তারা লুত (আ.) ডাকে সারা দেয়নি বরং বিরোদ্ধ আচরণ করেছিল।

ফলে আল্লাহ রাব্বুল আলামীন তাদেরকে পৃথিবীতেই ধ্বংস করে দেন। এবং যে এলাকায় এই ধ্বংসলীলা সংঘটিত হয়েছিল, সেটা পরবর্তী প্রজন্মের জন্য স্মৃতি করে রেখেছেন।

সুতরাং এমন জঘন্য অপরাধ যারা করে, তাদের শাস্তি আল্লাহ তা’য়ালা দুনিয়াতে দিবেন। অথবা পরকালে অবশ্যই দিবেন। যারা এমন জঘন্য কাজের সাথে জড়িত তারা অবশ্যই ঘৃণিত পশুর থেকেও নিচু। এবং যারা সমকামিতা কে সমর্থন করে তারা ইসলামবিরোধী তাদের শাস্তি অনিবার্য।

লাওয়াতাত বা পুং মৈথুন করা হারাম। অস্বীকারকারী কাফের। আর বেগানা নারী ও শশ্রু বিহীন বালকের প্রতি কামদৃষ্টি করাও হারাম। বেগানা নারীর শরীর স্পর্শ করা হারাম। আর হারাম সিদ্ধির মতলবে পদচারণা করাও হারাম। কারণ হাদীসে এসেছে চোখের যিনা হলো দর্শন।

হাতের স্পর্শ করা। মুখের জিনা হল কুরুচিপূর্ণ আলাপ-আলোচনা করা। আর লজ্জাস্থান হয়তো তাকে সত্যায়ন করে নয়তো তাকে মিথ্যা প্রতিপন্ন করে। সুতরাং সমকামিতা বা পুং মৈথুন ইসলামের দৃষ্টিতে জঘন্য ও হারাম।

সমকামিতার শাস্তি:

হযরত আব্দুল্লাহ ইবনে আব্বাস (রা.) হতে বর্ণিত, রাসুলুল্লাহ (স) বলেন, তোমরা যদি কাউকে এমন পাও যে, লুত (আ.) এর সম্প্রদায় যা করতো (সমকামিতা) তা করছে,তবে হত্যা করো। হত্যা করো, যে করছে তাঁকে এবং যাকে করা হয়েছে তাকেও। (আবু দাউদ ৩৮.৪৪৪৭)

বীর্য ঘন করার ঔষধ তৈরির পদ্ধতি

বীর্য ঘন করার ঔষধ তৈরির পদ্ধতি

যে চারটি কারণে গোসল ফরয হয়

আমাদের ইউটিউব চ্যানেল

শেয়ার করুন