হযরত  ওয়াইস করনী (রহ.) এর একটি ঘটনা

হযরত  ওয়াইস করনী (রহ.) এর একটি ঘটনা হযরত ওয়াইস করনী (রহ) হযরত রাসূলুল্লাহ (সা.) এর যুগের মুসলমান । তিনি হযরত রাসূল (সা.) এর সাথে সাক্ষাত করাটা মনে প্রাণে কামনা করতেন । তাছাড়া এ মাটির পৃথিবীতে হযরত রাসূল (সা.) এর সাক্ষাত লাভের চাইতে সৌভাগ্যের বিষয় আর কিছু হতে পারে না। কিন্তু হযরত ওয়াইস করনী (রহ ) হযরত রাসূল (সা.) এর কাছে জানতে চেয়েছিলেন ইয়া রাসূলল্লাহ (সা.)! আমি আপনার খেদমতে উপস্থিত হতে চাই। কিন্তু আমার মা অসুস্থ ।

আমার সেবাটা তার জন্য খুবই জরুরী । একথা জানার জন্য পর রাসূল (সা.) ওয়াইস করনী (রহ.) কে জানিয়ে দেন, তুমি আমার সাক্ষাতে আসার প্রয়োজন নেই। তুমি তোমার মায়ের সেবা করো। অবশেষে রাসূল (সা.) ওয়াইস করনী (রহ.) কে জানিয়ে দেন,তুমি আমার সাক্ষাতে আসার প্রয়োজন নেই। তুমি তোমার মায়ের সেবা করো। অবশেষে রাসূল (সা.) দুনিয়া থেকে বিদায় নিয়েছেন।

হযরত ওয়াইস করনী (রহ.) আর রাসূল (সা.) এর সাথে সাক্ষাৎ করতে পারেন নি। অতপঃর আল্লাহ তায়ালা ওয়াইস করনীকে মায়ের সেবা করার পুরস্কার দিয়েছেন যে, হযরত রাসূল (সা.) হযরত ওমর (রা.) কে এ মর্মে অসিয়ত করে গেলেন , হে ওমর ! কোনো এক সময় ইয়ামানের কারন অঞ্চল হতে এক ব্যক্তি মদীনায় আসবে। যার আকার আকৃতি হবে এই এবং বৈশিষ্ট্য হবে ত্রই ।

যদি তার সাথে তোমার সাক্ষাত হয় তাহলে তাকে দিয়ে তোমার জন্য দোয়া করাবে । কারণ আল্লাহ তায়ালা তার দোয়া কবুল করবেন।বর্ণিত আছে ইয়ামান থেকে যখনই কোনো কাফেলা মদীনায় আসতো হযরত ওমর (রা.) তাদের গিয়ে জিজ্ঞেস করতেন, তোমাদের মাঝে ওয়াইস করনী নামে কেউ আছে? এভাবে দীর্ঘ দিন অনুসন্ধান করার পর একবার তিনি জানতে পারলেন যে, ওয়াইস করনী (রহ.) মদীনায় এসেছেন?

এ কথা শুনে তিনি খুবই খুশি হলেন । তার সাথে গিয়ে সাক্ষাত করলেন এবং দেখলেন যে, রাসূল (সা.) তার যে আকার আকৃতি বলেছিলেন তা হুবহু মিলে গেছে। অবশেষে তিনি দোয়ার জন্য আবেদন জানালেন। হযরত ওয়াইস করনী (রহ.) জিজ্ঞাস করলেন আপনি আমার কাছে দোয়া চাইছেন কেন?

হযরত ওমর (রা.) বললেন হযরত রাসূল (সা.) আমাকে এ মর্মে ওসিয়ত করেছিলেন যখন কারন থেকে এক ব্যক্তি মদীনায় আসবে তখন তুমি তাকে দিয়ে তোমার জন্য দোয়া করাবে। আল্লাহ তায়ালা তার দোয়া কবুল করবেন । একথা শোনার পর ওয়াইস করনীর দুচোখ অশ্রুতে ভরে উটলো ।

ভাবলেন হযরত রাসূল (সা.) আমাকে এ সস্মান দান করেছেন। লক্ষ্য করার বিষয় হলো , হযরত উমর (রা.) কতো বড় সাহারী! অথচ তাকেই রাসূল (সা.) অসিয়ত করেছেন ওয়াইস করনীকে দিয়ে তোমার জন্য দোয়া করাবে । এটা মূলত মায়ের সেবার প্রতিদান।

হযরত ‍ওয়াইস করনী (রহ.) মায়ের সেবা করেই এ সম্পদ অর্জন করেছিলেন। তিনি রাসূল (সা.) এর সাক্ষাতের জন্য মদীনায় ছুটে যাননি ।বরং রাসূল (সা.) এর নির্দেশকে বুকে ধারন করে মায়ের সেবা করেছেন। (মুসলিম শরীফ)

হযরত  ওয়াইস করনী (রহ.) এর একটি ঘটনা

আব্দুল্লাহ ইবনে মোবারক

আমাদের চ্যানেল ভিজিট করুন

Leave a Comment